WELCOME to BENGALI BLOG of
SRI SRI MOHANANANDA BRAHMACHARI

Wednesday, June 17, 2015

***যা পেয়েছ নিজের অন্তরে রেখো***শ্রী শ্রীমোহনানন্দ অমৃত লীলা***

***শ্রী শ্রীমোহনানন্দ অমৃত লীলা*** 
***যা পেয়েছ নিজের অন্তরে রেখো*** 
  
সেইসময় দক্ষিনেশ্বর আদ্যাপীঠের কাছে গঙ্গার তীরবর্তী শ্রীহরগৌরী মন্দির সংলগ্ন একটি বাড়ীতে শ্রী শ্রীমহারাজ বছরে ৩ দিন অবস্থান করতেন।আমার দিদিমা ও দাদু সব আয়োজন ও ব্যবস্থা করতেন। গঙ্গার ধারে অতি  মনোরম সেই পুণ্য স্থানে শ্রী শ্রীমহারাজ  খুব আনন্দে থাকতেন। আমি তখন ভবানীপুরে বাবা মা'র কাছে আছি। ১৯৭৫ সালে পাড়ায় সরস্বতী পুজো এসব নিয়ে খুব মেতে আছি। হঠাত মনে হলো ,শ্রীহরগৌরী মন্দির-এ মহারাজ এসেছেন ,আজ শেষ দিন।আমার দেখা হলো না।সকালে ঘুম থেকে উঠেই দক্ষিনেশ্বর রওনা দিলাম।

রাতে কীর্তনের  পর,দর্শনার্থীরা চলে গেলে মহারাজ নিজের ঘরে দরজা খুলে বসেছেন । সারাদিনের ভীড়, দর্শন ও প্রণামের পর ঐ স্বল্পসময় টুকু বাড়ীর লোকেরা তাঁকে একান্তে পায় ও সেবা করার সুযোগ পায়।
আমার দাদু মহারাজের চরণদুটি কোলে নিয়ে সেবা করছে। আমি পাশে বসে আছি।আমার দাদু আমাকে দেখিয়ে মহারাজ কে বলে,---"বাবা,ও আজকাল খুব দুষ্টু হয়ে গেছে।কোনো কথা শোনে  না,  পড়াশোনা মন দিয়ে করে না---" মহারাজ পাশে বসা আমার দিকে তাকিয়ে বেশ অভিমান ভরা গলায় বললেন,---"হ্যা ,ওকে তো এবার দেখতেই পাই নি।দুদিন কেটে গেল ,আজ হঠাত মহারাজের কথা মনে পড়েছে ,তাই এসেছে -- " তারপর আমার চোখের দিকে চোখ স্থিরভাবে রেখে বললেন,---"তোমার কি মাথা ঘুরছে ??"

তারপর আমার মাথায় হাত দিলেন ও নিজের হাতের আঙ্গুল মাথার ব্রহ্মতালুতে চেপে ধরে রাখলেন,কতক্ষণ সে আমি জানি না,আমি তার পাশে বসা ---মনে হলো এক জ্যোতির্ময় আলোর সমুদ্রে বাড়ী ,ঘর ,নদী সব ভাসছে আর দুলছে ,মেরুদন্ড মধ্যে এক অজানা শিহরণ ,বৈদ্যুতিক CURRENT এর মত ওঠা নামা করছে। আমার কোনকিছু বলার,করার ওঠার শক্তি নেই। ..শুধু ওই অজানা শিহরণে,আনন্দে  সমগ্র সত্তা কোন অতলে ডুবে যাচ্ছে যেন......যখন  নিজের  সত্তায় ফিরলাম,দাদুর চরণ সেবা শেষ। মহারাজ হাতে করে সবাইকে প্রসাদী মশলা দিচ্ছেন। আমিও নিঃশব্দে প্রণাম করে হাত থেকে মশলা নিলাম। সবাই বেরিয়ে এলে মহারাজ দরজা বন্ধ করতে এগিয়ে এলেন ---কি এক অন্তর্ভেদী দৃষ্টিতে আমার চোখের দিকে চেয়ে দরজা বন্ধ করে দিলেন।

সবাই নীচে এসে রাতের খাওয়া সেরে উপরে কীর্তনের হলঘরে শুতে  গেলাম। পাশাপাশি ভাই ,বোনেরা সব একসাথে শুয়ে আছি----কিন্তু কাউকে  কিছু বলতে পারলাম না।মাঝ রাতে ঘুম ভাঙ্গতে উঠে বসলাম। সবাই অঘোরে ঘুমোচ্ছে।বাইরে বারান্দায় এসে দেখি গঙ্গার জলে ,রাতের জ্যোত্স্নার আলো মিলেমিশে এক মায়াময় পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে----হঠাত অনুভব করলাম ,কাঁধে কার হাত --ফিরে দেখি মহারাজ !
মাথায় হাত রেখে বললেন,---          
"আজ তোমাকে যা দিলাম , তুমি বুঝবেনা ,যেদিন বুঝবে সেদিন আমি অনেক দূরে  চলে যাব ,দেখো বাহিরের কোলাহলে,লোকের ভীড়ে  আমায় হারিয়ে ফেলো  না।যা পেয়েছ নিজের অন্তরে রেখো "
তারপর দ্রুত পায়ে নিজের ঘরে চলে গেলেন। আমিও হলঘরে এসে শুয়ে পরলাম।
পরদিন সকালে মহারাজ  চলে গেলেন।আমার মনের মণিকোঠায় চিরকালের সম্পদ রেখে গেলেন। যা কোনদিন কারো কাছে প্রকাশ করি নি,আজ তাঁর শ্রী শ্রীমোহনানন্দ অমৃত লীলা লিখতে বসে তিনি স্বেচ্ছায় ,অহেতুক কৃপায় প্রকাশ করলেন---এক অজ্ঞান ,অবোধ কিশোরীর প্রতি তাঁর অনন্ত কৃপার কাহিনী। 
***এ অপার মোহন কৃপাসিন্ধু কেমনে হইব পার ?!!***                                      

Google+ Followers

Followers

Total Pageviews

Translate